1. [email protected] : বাংলার কন্ঠ প্রতিবেদক : বাংলার কন্ঠ প্রতিবেদক
  2. [email protected] : বাংলারকন্ঠ : বাংলারকন্ঠ
  3. [email protected] : বাংলারকন্ঠ.কম : বাংলারকন্ঠ.কম
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৫:১০ অপরাহ্ন

পুঁজিবাজারে ২১ হাজার কোটি টাকা আসার প্রক্রিয়া চুড়ান্ত

  • আপডেট সময় : রবিবার, ৬ জুন, ২০২১
  • ১৭ বার দেখা হয়েছে
bsec

তালিকাভুক্ত কোম্পানির অবন্ঠিত মুনাফার প্রায় ২১ হাজার কোটি টাকা পুঁজিবাজারে আসার প্রক্রিয়া বর্তমানে চুড়ান্ত পর্যায়ে। চলতি সপ্তাহেই এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি হবে।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, ‘গেজেট প্রকাশের জন্য এটা বিজি প্রেসে চলে গেছে।’

এর আগে গত বছরের শেষ দিক থেকে পুঁজিবাজারে দীর্ঘদিনের হতাশা দূর হওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে যখন আলোচনা, সে সময় অবণ্টিত ডিভিডেন্ডের এই বিষয়টি সামনে আসে। দীর্ঘদিন থেকে তালিকাভুক্ত কোম্পানির অবন্ঠিত মুনাফার ২১ হাজার কোটি টাকারও বেশি পড়ে আছে দাবিহীন।

বিএসইসি প্রাথমিকভাবে সিদ্ধান্ত নেয়, এই তহবিল ব্যবহার করে পুঁজিবাজারের উন্নয়ন করার চেষ্টা করবে তারা। কীভাবে কী করা যায়, তার জন্য গঠন করা হয় কমিটি। বাজারে তারল্য বাড়াতে এই অর্থে ’ক্যাপিটাল মার্কেট স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড’ নামে একটি তহবিল করার চিন্তা করা হয়। সেখানে জমা হবে তালিকাভুক্ত বিভিন্ন কোম্পানির অবণ্টিত ডিভিডেন্ড।

অবন্ঠিত এই মুনাফা পুঁজিবাজারে ব্যবহারের জন্য খসড়া নীতিমালা উন্মুক্ত করে মতামত নেয়া হয় এবং সে অনুযায়ী নীতিমালাও চূড়ান্ত করা হয়।

খসড়া নীতিমালার ওপর বিএসইসিতে লিখিত প্রস্তাব পাঠায় তালিকাভুক্ত কোম্পানির সমিতি বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব পাবলিকলি লিস্টেট কোম্পানি-বিএপিএলসি। তাদের বেশ কিছু আপত্তি বিবেচনায় নেয়া হয়েছে।

এই অর্থ ব্যবহার করলে পুঁজিবাজারে তারল্যের দীর্ঘমেয়াদি সমস্যার সমাধান হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

গত ২৫ মে আগেই এ-সংক্রান্ত নীতিমালা চূড়ান্ত করা হলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে সরকারি ছাপাখানা বিজি প্রেসের কাজের পরিধি কম থাকায় তা সম্ভব হয়নি।

অবন্ঠিত এই মুনাফা কীভাবে ব্যবহ্নত হবে, এ বিষয়ে বিএসইসি নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র রেজাউল করিম সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, কোম্পানিগুলোর কাছে যে অবণ্টিত বোনাস ও ক্যাশ ডিভিডেন্ড আছে, সেগুলো নিয়ম অনুযায়ী ’ক্যাপিটাল মার্কেট স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে’ চলে আসবে।

তারপর যখন কেউ তার বোনাস ডিভিডেন্ড দাবি করবে, তখন সেই বিনিয়োগকারীর আলাদা বিও হিসাবের মাধ্যমে তা স্থানান্তর করা হবে।

পুঁজিবাজারের উন্নয়নে কীভাবে বিনিয়োগ হবে প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘এটি নির্ধারণ করবে এ-সংক্রান্ত গঠিত বোর্ড। বোর্ডের প্রধান থাকবে একজন সিও।’

এই তহবিল পরিচালনা দায়িত্বে থাকবে রাষ্ট্রায়ত্ত বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি)।

প্রতিষ্ঠানটির মুখপাত্র বিভাস সাহা বলেন, ‘গেজেট হাতে আসার পর এ সম্পর্কে বিস্তারিত বলা যাবে।’

তিনি বলেন, ‘আইসিবি তহবিলের ট্রাস্টি হিসেবে থাকবে। এর আগে সরকারের ক্ষতিগ্রস্ত তহবিল পরিচালনার জন্য আইসিবি যেভাবে দায়িত্ব পালন করেছে, সেভাবে এই তহবিলেও আইসিবি থাকবে।’ সূত্র: নিউজবাংলা

শেয়ার দিয়ে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ