1. [email protected] : বাংলারকন্ঠ : বাংলারকন্ঠ
  2. [email protected] : বাংলারকন্ঠ.কম : বাংলারকন্ঠ.কম
  3. [email protected] : nayan : nayan
সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ১০:০৫ অপরাহ্ন

আপনি কি স্লিপ অ্যাপনিয়ায় আক্রান্ত?

  • আপডেট সময় : সোমবার, ৮ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ৫৯ বার দেখা হয়েছে

স্বাস্থ্য ডেস্ক : ঘুমের মধ্যে নাক ডাকার অভ্যাসকে স্বাভাবিক ভাবা ঠিক নয়। নাক ডাকার পরিমাণ বেশি হলে ঘুমের মধ্যে হাঁসফাঁস লাগে। অনেকক্ষণ ঘুমিয়ে ওঠার পরও দিনের বেলায় ঝিমুনি হয়। জানার চেষ্টা করুন আপনি স্লিপ অ্যাপনিয়ায় আক্রান্ত কিনা।

স্লিপ অ্যাপনিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তির মাঝে মাঝে ঘুমের মধ্যে দম বন্ধ হয়ে যাওয়ার অনুভূতি হয়, বিশেষ করে চিত হয়ে ঘুমানোর সময় শ্বাস বন্ধ হয়। ঘুমের মধ্যে ঝাঁকুনি দিয়ে জেগে ওঠেন বা বসে পড়েন, কিছু সময়ের জন্য হৃৎস্পন্দন বেড়ে যায়।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, স্লিপ অ্যাপনিয়ার প্রভাবে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। স্লিপ অ্যাপনিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তি গাড়ি চালাতে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটানো, চাকরি থেকে বরখাস্ত হওয়া এমনকি সঙ্গীর সঙ্গে সম্পর্ক অবনতি হওয়ার মতো সমস্যায় পড়ে থাকেন।

তবে কেউ যদি রোগ শনাক্তের সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেন, তাহলে এই রোগ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। স্লিপ অ্যাপনিয়া হচ্ছে ঘুমানোর সময় শ্বাসনালী কিছু সময়ের জন্য বন্ধ হয়ে যাওয়া। শ্বাসনালী যতক্ষণ বন্ধ থাকে বাইরে থেকে বাতাসের মাধ্যমে অক্সিজেন শরীরে প্রবেশ করতে পারে না। এতে মস্তিষ্ক, হার্ট বা অন্যান্য অঙ্গ প্রত্যঙ্গ দিনের পর দিন কিছু সময়ের জন্য অক্সিজেনের ঘাটতির ফলে ধীরে ধীরে ক্ষতিগ্রস্ত হতে থাকে। ফলে হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক, উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বেড়ে যায়।
ঘুমের সময় আমাদের ঘাড় ও গলার চারপাশের মাংসপেশি শিথিল হলে ভেতরের দিকে এলিয়ে পড়ে। এ কারণে ঘুমানোর সময় শ্বাসনালীর কিছুটা সংকোচন ঘটে।
যারা স্থূলতায় ভুগছেন, তাদের শ্বাসনালীর সংকোচন অনেক বেশি হয়ে থাকে। অক্সিজেনের সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়, তখন মস্তিষ্ক সিগন্যাল দিয়ে রোগীকে জাগিয়ে তোলে, যেন তিনি নিশ্বাস নেন এবং তখন সংকুচিত শ্বাসনালী খুলে যায়।এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির মেজাজ খিটখিটে থাকে। কারও সঙ্গে কথা বলতে ভালো লাগে না, অবসাদগ্রস্ত লাগে। কাজে মনোযোগ দিতে পারেন না। ভুলে যাওয়ার সমস্যা। ওষুধ খেয়েও রক্তচাপ বা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে না। পা ম্যাজ ম্যাজ করে এবং মাথাব্যথা করে।

চিকিৎসা: প্রাথমিক পর্যায়ের স্লিপ অ্যাপনিয়া ধরা পড়লে সেটি নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব।

তবে দীর্ঘদিন যদি এই সমস্যার সুরাহা করা না হয় তাহলে পরিস্থিতি জটিল আকার নেবে এবং শরীরের জরুরি অঙ্গ প্রত্যঙ্গ নষ্ট হওয়া শুরু হবে। এতে হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, কিডনি জটিলতা ও ডিপ্রেশনের ঝুঁকি বেড়ে যাবে; যার প্রভাবে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

স্লিপ অ্যাপনিয়া জটিল আকার নিলে চিকিৎসকরা রোগীকে কন্টিনিউয়াস পজিটিভ এয়ারওয়ে প্রেশার বা সি প্যাপ নামে একটি যন্ত্রের সাহায্য নিতে বলেন। এই যন্ত্রটি মূলত ঘুমের মধ্যে রোগীর শ্বাসনালী খোলা রাখতে সাহায্য করে এবং অক্সিজেনের সরবরাহ নিরবচ্ছিন্ন রাখে।

তবে এই যন্ত্রটির ব্যবহার শুরুতে শুরুতে অস্বস্তিকর, যদিও পরে অভ্যাস হয়ে যায়। অনেকেই আছেন যারা স্লিপ অ্যাপনিয়া হলে কিছুদিন যন্ত্র ব্যবহারের পর তা ফেলে রাখেন। এমনটি করা যাবে না। তবে যারা সি-প্যাপ ব্যবহার করতে পারবেন না, তাদেরকে বিকল্প চিকিৎসা নিতে হয়। যেমন, গলার টনসিল বা নাকের পেশি বড় হয়ে গেলে তা অপারেশন করা।

এছাড়া জীবনযাত্রায় কিছু পরিবর্তন আনলেও স্লিপ অ্যাপনিয়া নিয়ন্ত্রণ করা যায়।যেমন, ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা, নিয়মিত ব্যায়াম করা, সুষম খাদ্যাভ্যাস, ডায়াবেটিস বা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা, ধূমপান ও মদপান পরিহার, কাত হয়ে ঘুমানো।

শুধুমাত্র ওজন কমালেই স্লিপ অ্যাপনিয়া চলে যাবে সেটা বলা যায় না; এতে রোগটি মোকাবিলা করা এবং নিয়ন্ত্রণে রাখা আগের তুলনায় সহজ হবে এবং জটিলতা কমে যাবে।

তথ্যসূত্র: বিবিসি

শেয়ার দিয়ে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ